৩০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১২ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-

সোনাগাজীতে বিদ্যুৎ লোডশেডিং ব্যাপক হারে বাড়ছে জনগন অতিষ্ট

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুন ২৯ ২০১৬, ২০:০৪ | 613 বার পঠিত

Substation_resizedসোনাগজী প্রতিনিধি:মো: জাহিরুল হক খাঁন (সজীব)-
সোনাগাজী উপজেলায় রমজানের শুরু থেকে দুঃসহ লোডশেডিং শুরু হয়েছে। বিদ্যুৎ না থাকা এখন স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবার বিদ্যুৎ আসলেও এক ঘণ্টা বা তার চেয়ে কম সময় থেকে আবার চলে যায়। লোডশেডিংয়ের তীব্রতায় মানুষ এখন দিশেহারা। দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া না হলে এ অবস্থা সহ্য করা জনগণের জন্য কঠিন হয়ে পড়বে বলে জানিয়েছেন ব্যবসাই ও আবাসিক গ্রাহকেরা। বিশেষ করে রমজান মাস হওয়ার কারনে সেহেরি, ইফতার ও তারাবির নামাজের সময় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ চায় ব্যবসাই ও আবাসিক গ্রাহকেরা।

ক্ষোভের সাথে সোনাগাজী পৌরসভার মানিক প্লাজারের ব্যবসায়ী কামরুল ইসলাম জানান, বিদ্যুৎ নিয়ে নাকি দেশে রেকর্ডের বন্যা অতিতের চেয়ে রের্কট ভঙ্গ করেছে সুনলাম৷ তবে এই রেকর্ড কি বিদ্যুৎ না দেওয়ার জন্য।
তবে তিনি খোব সাথে বলেন ডিজিটাল বাংলাদেশ তাই বিদ্যুৎ পাই না, মাঝে মাঝে আসে। তাও বেশিক্ষন থাকে না৷ এটা মনে হয় না ডিজিটাল দেশ ৷
ব্যবসাই ও আবাসিক গ্রাহক নয়া আলো সোনাগাজী প্রতিনিধিকে জানান, সাব স্টেশনে বিদ্যুৎ থাকলেও তা গ্রহককে দেন না লাইন বন্ধ করে রাখেন।

যদিও গ্রাহকদের কথার সাথে একমত প্রকাশ করতে পারেননি নয়া আলোর প্রতিনিধি সত্যকার অর্থে বিদ্যুৎ জমা রাখার জিনিস না মনে চাইলে লাইনে বিদ্যুৎ দিব আর মন না চাইলে দিবনা তা ঠিকনা সিষ্টেম লস আর লোডশেডিং এক কথা না ৷ অনেকে ধারনা করেন পুরুস্কারের আসায় লোডশেডিং দিয়ে থাকেন এটা ভুল ধারনা সাব-ষ্টেশনে বিদ্যুৎ জমা রাখা যায় না৷ পল্লী বিদ্যুৎ আসছে গ্রহক সেবা দিতে আর সেবার মাধ্যে ব্যবসা করতে যদি বিদ্যুৎ গ্রাহককে না দেন তাতে পল্লী বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের লস হবে৷ সেবা যত বেশি দেওয়া যায় পল্লী বিদ্যুৎ তের টারগেট ৷

গ্রাহকে মন্তব্য মটর ভ্যান/টমটম চার্জ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সুবিধা লাভের আশায় স্থানীয় কতৃপক্ষ দিনের বেলায় লোডশেডিং এর অজুহাত দেখিয়ে বিদ্যুৎ বন্ধ রাখছে। সংশ্লিষ্ট নির্ভর যোগ্য সূত্র জানায়, সিস্টেম লস কমাতে পারলে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি তাদের সংশ্লিষ্ট এলাকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পুরুষ্কৃত করে। তাই স্থানীয় কতৃপক্ষ পরিকল্পিত ভাবে সাব স্টেশনে বিদ্যুৎ থাকতেও দিনের বেলায় ও সন্ধ্যা দেননা ৷ এটা সত্যই ভুল ধারনা৷

কমপক্ষে প্রতিদিন ১২/১৩বার বিদ্যুৎ যাওয়া আসা করে। কখনো কখনো বিদ্যুৎ গেলে অপেক্ষা করতে হয় ৫/৬ঘন্টা পর্যন্ত।প্রতিদিন গড়ে ২৪ঘন্টার মধ্যে সর্বচ্চ ৫ থেকে ৬ ঘন্টা বিদ্যুৎ সেবা পায় ব্যবসাই ও আবাসিক গ্রাহকেরা এটা সত্য৷ ব্যবসাইগন বলেন বিল একটা বাকী থাকলে বিদ্যুৎতের লোক বিল কালেকশনের জন্য চলে আসেন৷ গ্রাহক তখন খিব্দ হয়ে কথা বল্লে বিদ্যুৎতের লোক বলে বিল না দিলে লাইন বিছিন্ন করবো৷ এসকল খোব এডাতে নিরবিচন্ন বিদ্যুৎ চাই৷
সকলেই এনিয়ে দূর্ভোগে থাকলেও কারোর যেন কিছুই করার নেই। বিষয়টি যেন একেবারেই স্বাভাবিক ৷ এব্যাপারে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, নিয়মিত বিদ্যুৎ বিভ্রাটে তাদের স্বাভাবিক পড়া-লেখা চরম ভাবে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। এদিকে বিদ্যুতের ঘাটতি দেখিয়ে বিদ্যুৎ বন্ধ রাখলেও নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানের কাজ চলছে পুরোদমে।
সূত্র জানায় নতুন সংযোগে কতৃপক্ষ থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট দালাল ও ইলেকট্রিশিয়ানরা অতিরিক্ত অর্থ লাভের আশায় নিয়মিত সংযোগ প্রদান কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানান, রোজার আগে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সোর্স লাইনের অপরিকল্পিত কাজ বাস্তবায়নের অজুহাত দেখিয়ে কতৃপক্ষ দিনের বেলায় বিদ্যুৎ বন্ধ রেখেছিলেন বিভিন্ন সময়৷
বিভিন্ন এলাকায় ঐ সকল ভ্যানের চার্জ দিতে বাণিজ্যিক ভাবে গড়ে উঠেছে চার্জ স্টেশন। তাদের কাছ থেকে স্থানীয় কতৃপক্ষ আদায় করে থাকেন নিয়মিত সুবিধা বা বখরা। একদিকে সিস্টেম লস কমাতে পারলে পুরুষ্কার অন্য দিকে চার্জ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়মিত নজরানা আদায় থাকেন।

এই ব্যাপারে জানকে চাইলে সোনাগাজী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জোনাল অফিসের জুনিয়ার ইঞ্জিনিয়ার মাহবুবুল আলম নয়া আলোকে জানান, বিদ্যুৎতে চাহিদা প্রচুর কিন্তু বিদ্যুৎ আমাদের কে ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি থেকে চাহিদা মোতাবেক দিতে পারছেন না সমিতি৷ তাই লোডশেডিং দিতে আমি বাধ্য৷ রমজান মাসের যে লোডশেডিং দিতে হচ্ছে তাহা ঈদের পরে ছাড়া সমাদান হবে না ৷ করন আমাদের ৩৩ কেভি সাব-এষ্টেশনের ২টা ট্রন্সফরমার এর মধ্যে ১টা নষ্ট ঈদের আগ পর্যন্ত এই ভাবে চলবে৷ আমার সাব- এষ্টেশনে ৬টি ফিডার আমি চাহিদা মোতাবেক বিদ্যুৎ সাপ্লাই দিতে হিমশিমে আছি৷
সোনাগাজী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জোনাল ম্যানাজার ডিজিএম বলেন সামরিক অসুবিধার জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখিত৷ কিছু সুবিধাবাদি সাংবাদিক লিখেছেন আমরা সাব-এষ্টেশনে বিদ্যুৎ রেখে গ্রাহকে দিচ্ছিনা ৷ আরও লিখছেন লোডশেডিং দিয়ে সিষ্টেম লস দেখাইতে পারলে আমরা পুরুস্কার পাই৷ আমি ঐ সাংবাদিক ভাইদের বলি বিদ্যুৎ সম্পকে কিছু না জেনে নাবুঝে লিখেন তারা৷ আমি তাদের উদ্দেশ কর বলতে চাই লিখার আগে বিদ্যুৎ সম্পকে শিক্ষা অর্জন করুন৷ সামরিক অসুবিধার জন্য বিষয়টি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডে জানানো হয়েছে৷ এই বিষয়ে তাদের কোন হাত নেই বলে জানান।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4165343আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 15এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET