১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৩ই সফর, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • দেশজুড়ে
  • তাহেরপুর হাট-বাজারে মনিটরিং ব্যবস্থা না থাকায় কাঁচা বাজারে সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী

তাহেরপুর হাট-বাজারে মনিটরিং ব্যবস্থা না থাকায় কাঁচা বাজারে সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী

নাজিম হাসান, রাজশাহী করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : আগস্ট ১১ ২০২০, ২১:৪৩ | 659 বার পঠিত

নাজিম হাসান,রাজশাহী জেলা প্রতিনিধি : রাজশাহী জেলার বৃহতম বাগমারার তাহেরপুর পৌরসভা হাটে কাঁচা বাজারে সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখীর দিকে চলছে। এখানে সবজির প্রয়োজনীয় চাহিদা অনুপাতে অপ্রতুল। কিন্তু বাজারের বর্তমান চিত্র ভিন্ন। এই সময়ে সবজির যে দাম থাকার কথা,তার চেয়ে তুলনামূলক বেশি বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। এছাড়া নিয়মিত বাজার মনিটরিং না থাকা এবং ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ আইনে প্রতিটি দোকানে দাম নির্ধারণ করে তালিকা না দেওয়ায় ইচ্ছামত দাম হাকিয়ে নিচ্ছে এখানকার খুচরা দোকানীরা। তাই স্বস্তিতে নেই নিম্ন মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র শ্রেণীর মানুষ। এদিকে তাহেরপুর হাটে বাগমারা,দুর্গাপুর ও পুঠিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে সবজির আমদানি হয়। তবে সরবরাহ বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দাম বাড়ছে সবজির। ঈদের এক সপ্তাহ না যেতে সবজির দাম কেজিতে বেড়ে চলেছে। এবং এ রকম চলতে থাকলে কাঁচা বাজারের দাম বাড়তেই থাকবে বলে অভিযোগ করেছেন ক্রেতারা। সোমবার বার সকালে তাহেরপুর হাটে খুচরা বাজার ঘুরে দেখা যায়, এ সপ্তাহের ব্যবধানে সবজিসহ বাকি পণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী। কাচা মরিচ ১৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। একাধিক ক্রেতারা জানান সব ধরনের তরকারী রান্নাতে মরিজ পিয়াজের প্রয়োজন। যেখানে মরিজ পিয়াজ ছাড়া সাদ হয়না। এখন বাধ্য হয়ে তরকারীতে মরিজ দেয়া হচ্ছে কিন্তু পরিমাণে অনেক কম। শুধু মরিচের ঝাজতো আছেই। সেই সাথে সবজি বাজারে উঠলেও দাম নাগালের বাহিরে। নিম্ম আয়ের,লোকজন জানান, তরি তরকারী কিনতে এসে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে। এত দাম হলে কিভাবে চলা যায়। বেশি দাম হবার কারনে সব কিছু অর্ধেক করে কেনা হচ্ছে। হাটে দেশী পিয়াজ প্রতি কেজি ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, কাচা মরিচ ১৪০’ থেকে ১৬০ টাকা কেজি, বেগুন কেজিতে ৩৫ টাকা থেকে ৪০টাকা দরে বাজারে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও পুরাতন আলু কেজিতে ৩০ টাকা থেকে ৩৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এসব নিত্যপণ্য সবজির বাজার কেউ নিয়ন্ত্রন করেন না। কিন্তু এরা ইচ্ছেমত দাম নির্ধারণ করেন। হাটে আসা একাধিক ক্রেতা জানান সরকারী মুল্যের চেয়ে খাজনা আদায় হয় কয়েকগুন বেশি। আর এসবের জের টেনে সাধারন নিম্ম আয়ের মানুষের পকেট কাটা হচ্ছে বেপরোয়া ভাবে। উপজেলার প্রশাসনের কোন ধরনের বাজার মনিটরিং না থাকার কারনে ইচ্ছেমত দাম নিচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ক্রেতারা বলছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা সবজি বিক্রিতে অতি মুনাফা করছেন। মোকামে দাম কম হলেও তারা দাম বেশি নিচ্ছেন। প্রশাসন বাজার পর্যবেক্ষণ করে অতি মুনাফাখোরদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিলে সবজির দাম কিছুটা আয়ত্বের মধ্যে আসবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। তবে নিয়মিত বাজার মনিটরিং না থাকা এবং প্রতিটি দোকানে দাম নির্ধারণ করে তালিকা দেয়া হলে এত অনিয়ম থাকবেনা বলে দাবি একাধিক ক্রেতার। অপরদিকে,(১০ আগস্ট) সোমবার দুপুরে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মাসুম আলী তদারকিমূলক অভিযানে শুধুমাত্র ৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সর্বমোট ১৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। উল্লেখ্য,১৯৬৪ সালের অ্যাগ্রিকালচারাল প্রডিউস মার্কেটস্ রেগুলেশন অ্যাক্ট ও ১৯৮৫ সালের সংশোধিত বাজার নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৬ (১) ও ১৬ (২) ধারামতে কৃষিজাত ও ভোগ্যপণ্যের ক্রয়মূল্য, বিক্রয়মূল্য ও মজুদ পরিস্থিতির তদারকির ক্ষমতা রয়েছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের বাজার কর্মকর্তাদের। কিন্তু বাস্তবে কোথাও আইনটির প্রয়োগ হতে দেখা যায় না। তাছাড়া ১৯৫৩ সালের মজুদবিরোধী আইন ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য নিয়ন্ত্রণ আইনেরও প্রয়োগ নেই। সেজন্যে ক্রমাগতভাবে নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ছে বাজার গুলো।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4109469আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 9এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET