৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১২ই সফর, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • রাজশাহী
  • শিবনদীর বাঁধ কেটে দেয়ায় বাগমারায় সাত ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত

শিবনদীর বাঁধ কেটে দেয়ায় বাগমারায় সাত ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত

নাজিম হাসান, রাজশাহী করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুলাই ১৫ ২০২০, ২১:৪৩ | 660 বার পঠিত

শিবনদীর টেংরা নামক স্থানের বাঁধ কেটে দেয়ায় রাজশাহীর বাগমারায় ৭ টি ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। বন্যা কবলিত ইউনিয়ন গুলো হলো, গোবিন্দপাড়া, নরদাশ, আউশপাড়া, শুভডাঙ্গা, সোনাডাঙ্গা, গনিপুর ও কাচারী কোয়ালীপাড়া। সোনাডাঙ্গা ও কাচারী কোয়ালীপাড়া ইউনিয়নের বিভিণ্ন গ্রামে বন্যার পানি ঢুকে হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে। বন্যা কবলিত এলাকায় সরকারী কোন কর্মকর্তা এখনো যায়নি বলে বন্যায় পানি বন্দি লোকজন জানিয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত (১৪ জুলাই) মঙ্গলবার রাতের কোন এক সময়ে মান্দা এলাকার কিছু স্বার্থন্মেষী মহল নিজেদের স্বার্থসিদ্ধীর জন্য শিবনদীর টেংরা নামক স্থানের বাঁধটি কেটে দেয়। শিবনদীর টেংরা নামকস্থানের বাঁধটি কাটার সাথে রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত হয়। পানি বন্দি হয় হাজার হাজার মানুষ। নষ্ট হয় লক্ষাধীক একর আবাদী জমির ফসল। বন্যায় ভেসে যাওয়া ফসল গুলোর মধ্যে পান বরজ, মরিজ, সবজি ক্ষেত, আউশ ও আমন ধান উল্ল্যেখ যোগ্য। এছাড়াও বন্যায় ভেসে গেছে শত শত পুকুরের মাছ। সোনাডাঙ্গা ও কাচারী কোয়ালীপাড়া ইউনিয়নের বিভিণ্ন গ্রামে মানুষের শোয়ারঘরেও পানি ঢুকে পড়েছে। কিছু কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পানির নীচে তলিয়ে গেছে। এলাকার লোকজন বাড়িঘর ছেড়ে, গরু, ছাগল নিয়ে বিভিণ্ন বাঁধে ্আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করছে। বন্যা কবলিত এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধ গুলো দুর্বলের কারনে সেখানে মানুষ আশ্রয় নিতে ভয় পাচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোন কোন বাঁধ বন্যার পানির কারনে হুমকির মুখে পড়েছে বলে জানা গেছে। কাচারী কোয়ালীপাড়া ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের আ’লীগ নেতা দুলাল উদ্দীন অভিযোগ করেন, তার এলাকার প্রতিটি গ্রামেই বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। লোকজন দিক বিদিক ছুটাছুটি করছে। সরকারী কোন কর্মকর্তা তাদের এলাকার লোকজনের খোঁজখবর নিতে যায়নি বলে তিনি জানিয়েছেন। বন্যার বিষয়টি সংবাদসহ বিভিণ্ন মিডিয়ায় প্রচারের জন্য তিনি সংবাদ কর্মীদের সহযোগীতা করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। ধারনা করা হচ্ছে দুই একদিনের মধ্যে উপজেলার সকল ইউনিয়ন ও পৌরসভায় বন্যার পানি ঢুকতে পারে বলে এলাকার লোকজন জানিয়েছেন। এদিকে বন্যার পূর্বভাস পাওয়ার পর পর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। বন্যা বাগমারায় প্রবেশ করায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সরকারী কর্মকর্তাদের জরুরী বৈঠক ডেকেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ আহম্মেদ। বুধবার বিকেলেই উপজেলা পরিষদ চত্বরে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও বন্যার পূর্বভাসের কারনে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রক্ষা করছে উপজেলা প্রশাসন। বন্যা কবলিত এলাকায় যে কোন দুর্যোগ দ্রুত মোকাবিলা করার সকল প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে বলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফ আহম্মেদের মুঠোফোনে যোগাযোগের করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি সবেমাত্রই জানতে পারলাম। আমি ঘটনা গুলো দেখার জন্য বন্যা কবলিত এলাকায় করেছি। এছাড়াও বন্যাসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলার সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ রয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।#

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4108023আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 3এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET