২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • শরীয়তপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ শতাধিক ককটেল বিস্ফোরন, আহত ১০

শরীয়তপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ শতাধিক ককটেল বিস্ফোরন, আহত ১০

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুন ২২ ২০১৬, ২৩:২৮ | 629 বার পঠিত

46_3নয়া আলো ডেস্ক- জেলার জাজিরা উপজেলায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিলাসপুর ইউপি চেয়ারম্যান এর বাড়িসহ কমপক্ষে ২০টি বাড়িঘরে বোমা হামলা ও ব্যাপক ভাংচুর করেছে প্রতিপক্ষের লোকেরা। সংঘর্ষে শতাধিক ককটেল বিস্ফোরনে আহত ১০ জন।

মঙ্গলবার দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয় বলে জানায় পুলিশ।

এ ঘটনায় অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। ঘটনার পর থেকে এলাকায় পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। পুলিশ বলছে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুগ্রুপের বাড়ি ঘরে টুকিটাকি হামলা ভাংচুর হয়েছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন আছে।

জাজিরা থানা ও মুলাই বেপারী কান্দি গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত সোনাবান বেগম জানান, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার বিলাসপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আঃ কুদ্দুস বোপরী ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল জলিল মাদবর, ফারুক হাওলাদার, মোস্তফা, নুরুজ্জামান হওলাদার গংদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে মাঝে মধ্যেই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে থাকে। গত দুই বছরে বিলাসপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সাধারণ সম্পাদক ও কুদ্দুস বেপারীর সমর্থক আব্দুর রাজ্জাক মাদবরকে বিলাসপুর বাজার থেকে ধরে নিয়ে কুপিয়ে হত্যাসহ দুটি খুনের ঘটনা ঘটেছে। দীর্ঘ ৮ মাস যাবত বিলাসপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আঃ কুদ্দুস বেপারী ঢাকায় অবস্থান করছেন। গত মঙ্গলবার দুপুরে বিলাসপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারী তার নিজ বাড়ি বিলাসপুরের মুলাই বেপারী কান্দির বাড়িতে আসছে এমন সংবাদ শুনে প্রতিপক্ষ জলিল মাদবর, ফারুক হাওলাদার, মোস্তফা, নুরুজ্জামান হওলাদারের শতাধিক সমর্থকরা লাঠিসোটা নিয়ে এগিয়ে যায়। সেখানে তারা আলা উদ্দিন এর বাড়ির সামনে ককটেল বিষ্ফোরন ঘটায় এবং বাড়িতে হামলা করে বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে উভয় গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে কুদ্দুছ বেপারীর সমর্থক সেলিম মাদবর, মামুন খা, দিপু সরদার ও জলিল- ফারুক হাওলাদারের সমর্থক চানমিয়া সরদার, সবুজ সরদার ও মাসুম সহ উভয় গ্রুপের অন্তত ১০জন আহত হয়। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় কুদ্দুস সমর্থকরা সামচেল হক হাওলাদারের বাড়িঘরে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর করে বলেও অভিযোগ জলিল মাদবর গ্রুপের সমর্থকদের। এ ঘটনার জের ধরে বুধবার ভোরে জলিল মাদবর ও ফারুক হাওলাদারের শতাধিক সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র রামদা, ছেনদা, টেটা, চাপাতি, ঢাল, শরকি নিয়ে ককটেল বিস্ফোরন ঘটিয়ে বিলাসপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল কুদ্দুস বেপারীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার বিল্ডিং এর ভিতরে থাকা সকল প্রকার আসবাব পত্র ভাংচুর করে। এ সময় হামলা কারীরা চেয়ারম্যানের বড় ভাই ইদ্রিস বেপারীর বাড়ি, নুর ইসলাম বেপারীর বাড়ি, আব্দুল জব্বার মীরের বাড়ী, আলী বেপারীর বাড়ি, আবুল হোসেন মাষ্টারের বাড়ি, জাহাঙ্গীর বেপারীর বাড়ি, আলাউদ্দিন মোল্যার বাড়ি, আনোয়ার চৌকিদারের বাড়ি, শওকত ছৈয়ালের বাড়ি, নুরুজ্জামান সরদারের বাড়ি, আনিস উদ্দিন মাদবরের বাড়ি জয়নাল মোল্লার বাড়ি, দাইমুদ্দিন খলিফা কান্দি গ্রামের মেম্বার হারুন খলিফার বাড়ি, সবুজ সরদারের বাড়ি ও আলীমুদ্দিন মাদবর কান্দির গফুর বেপারীর বাড়িসহ ২০টি বাড়িঘরে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর, লুটপাট ও তছনছ করে প্রায় নগদ টাকা ও বিভিন্ন রবিশষ্য সহ ১০ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় হামলাকারীরা শতাধিক ককটেলের বিস্ফোরন ঘটিয়ে এলাকায় আতংক সৃষ্টি করে বলে অভিযোগ ক্ষতিগ্রস্তদের। প্রতিপক্ষের ভয়ে মূলাই বেপরী কান্দির অধিকাংশ বাড়ির পুরুষ লোকেরা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে যায়। ঘটনা স্থলে গিয়ে ওই গ্রামে কোন পুরুষ লোকজন পাওয়া যায়নি। এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে জাজিরা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত কোন পক্ষই মামলা করেনি।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ নেতা জলিল মাদবর ও ফারুক হাওলাদার বলেন, মঙ্গলবার কুদ্দুস বেপারীর লোকজন আমাদের সমর্থক সামচেল হক হাওলাদারের বাড়ি ঘরে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর করেছে এবং আমাদের সমর্থক মাসুম মাদবর ও চানমিয়া সরদারকে মারধর করে। এরই জের ধরে আমাদের লোকেরা কিছু বাড়ি ঘরে হামলা করেছে।

বিলাসপুর ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল কুদ্দুস বেপারী মোবাইল ফোনে বলেন, আঃ জলিল মাদবর, নুরুজ্জামান হাওলাদার, মোস্তফা ও ফারুক হাওলাদার বুধবার ভোরে ৪/৫ শতাধিক লোকজন নিয়ে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে আমার বাড়িতে এবং আমার সমর্থকদের বাড়ি ঘরে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। এ সময় তারা শতাধিক ককটেলের বিস্ফোরন ঘটিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃস্টি করে।

জাজিরা থানার ওসি মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার চেয়ারম্যানের লোকজন এলাকায় ঢুকতে চাইলে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এর জের ধরে কয়েকটি বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুর হয়েছে। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করি। এখনো কোন পক্ষের লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4157923আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 7এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET