২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-

মিশরীয় বিমানটি বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত: ফরেনসিক কর্মকর্তা

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : মে ২৫ ২০১৬, ০০:০৮ | 610 বার পঠিত

মিশরীয় বিমানের ধ্বংসাবশেষ থেকে উদ্ধার মরদেহের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে বিস্ফোরণের ফলে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

মিশরীয় একজন সিনিয়র ফরেনসিক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এপিকে মঙ্গলবার একথা জানিয়েছেন।

প্যারিস থেকে কায়রো যাওয়ার পথে ৬৬ জন আরোহী নিয়ে গত বৃহস্পতিবার সকালে ভূমধ্যসাগরে বিধ্বস্ত হয় ইজিপ্টএয়ারের ৮০৪ নম্বর ফ্লাইটটি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই কর্মকর্তা জানান, তিনি ব্যক্তিগতভাবে ওই বিমানের নিহত ৬৬ জনের কয়েকজনের মরদেহ কায়রো মর্গে পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন।

তিনি জানান, কায়রোতে এখন পর্যন্ত মরদেহের যে ৮০টি অংশ নিয়ে আসা হয়েছে তা ক্ষুদ্র এবং একটিও পূর্ণাঙ্গ দেহ নেই। আছে হাত বা মাথার মত অংশ।

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘এর যৌক্তিক ব্যাখ্যা হচ্ছে এটা ছিল একটা বিস্ফোরণ কিন্তু বিস্ফোরণটা কী কারণে ঘটেছে তা আমি বলতে পারছি না।’

মিশরীয় কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের বিশ্বাস এয়ারবাস ৩২০ বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার জন্য কারিগরি ত্রুটির চেয়ে সন্ত্রাসবাদকে বড় কারণ হিসেবে দেখছেন তারা। তবে এখনো পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো অকাট্য প্রমাণ মেলেনি। কোনো সন্ত্রাসবাদী সংগঠনও দায় স্বীকার করেনি।

গত অক্টোবরে মিশরের শার্ম আল-শেখ থেকে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গ যাওয়ার পথে সিনাই উপত্যকায় ২২৪ আরোহী নিয়ে রাশিয়ার একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। ইসলামিক স্টেট ওই বিমানটিকে ধ্বংস করার দাবি করেছে। রুশ তদন্তেও বিমানটিতে নাশকতার প্রমাণ মিলেছে।

স্বৈরশাসক আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসির শাসনে মিশরে ইসলামপন্থীদের নির্মূল করা হচ্ছে এবং এর প্রতিক্রিয়ায় দেশটিতে ইসলামি জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4163434আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 1এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET