৩রা আগস্ট, ২০২০ ইং, সোমবার, ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১২ই জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • স্মরণীয়-বরণীয়
  • বরন্য সাংবাদিক গেদুচাচার খ্যাত বীর মু্ক্তিযোদ্ধা খন্দকার মোজাম্মেল হক’র সংক্ষিপ্ত জীবনী : এইচ এম মাসুম বিল্লাহ ভূঁইয়া

বরন্য সাংবাদিক গেদুচাচার খ্যাত বীর মু্ক্তিযোদ্ধা খন্দকার মোজাম্মেল হক’র সংক্ষিপ্ত জীবনী : এইচ এম মাসুম বিল্লাহ ভূঁইয়া

নয়া আলো অনলাইন ডেস্ক।

আপডেট টাইম : জুলাই ০৫ ২০২০, ১০:৫৫ | 712 বার পঠিত

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও গেদুচাচা খ্যাত সাংবাদিক খোন্দকার মোজাম্মেল হকের জম্ম ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলাধীন গতিয়া পূর্ব সোনাপুর গ্রামের খোন্দকার বাড়িতে। তিনি ১৯৫০ সালের ১৮ ই ফেব্রুয়ারী সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জম্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতা এটিএম খোন্দকার ওবায়দুল হক ছিলেন শিক্ষক। মায়ের নাম সৈয়দা আজিজুন নেছা খানম।
ছাত্র জীবন থেকেই তিনি ছিলেন প্রতিবাদী, বিদ্রোহী ও স্বাধীনচেতা। ১৯৬৪ সালের ১১ ই মার্চ ছাত্র গনহত্যার প্রতিবাদে সারা দেশে ধর্মঘট ও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার কর্মসূচি পালনের সময় তিনি ছাগলনাইয়া থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে থানার সামনে পাকিস্তানের উত্তোলিত জাতীয় পতাকা ছিড়ে ফেলার অভিযোগে অন্যান্য সহকর্মীসহ হুলিয়া নিয়ে পালিয়ে বেড়ান।
১৯৬৬ সালের ৭ ই জুন তিনি আটক হলেও পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। ১৯৬৬ সালে তিনি ফেনী সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক, ১৯৬৭ সালে ফেনী মহকুমা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ও নোয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক ছিলেন।
১৯৬৮ সালে তিনি নোয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।
ঐতিহাসিক ১১ দফা আন্দোলনের সময় খোন্দকার মোজাম্মেল হক এবং শহীদ সৈয়দ মাওলানা ওয়ায়েজ উদ্দিন নোয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক নির্বাচিত হন। সেই সময়ে তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরওয়ানা জারি হয়।
১৯৬৯ সালে তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে তিনি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক জেলা ফেনী স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক ও সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
১৯৭১ সালের ৭ ই মার্চ রেসকোস ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জনসভায় খোন্দকার মোজাম্মেল হক স্বশরিরে উপস্থিত ছিলেন। সেই ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চের ভাষন শুনার পর দিন ৮ ই মার্চ তিনি ফেনীতে আসেন। এসেই ৮ ই মার্চ নিজ হাতে খোন্দকার মোজাম্মেল হক জাতীয় পতাকা তৈরি করেন। পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের নোয়খালী জেলার ( গ্রেটার জেলা) সাধারণ সম্পাদক ও স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ফেনী মহকুমার আহবায়ক হিসেবে ৯ মার্চ ১৯৭১ ফেনীর ট্রাংক রোড়ে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের বিশাল জনসভায় লাল সবুজের পতাকা উত্তোলন করেন খোন্দকার মোজাম্মেল হক।
২৫ মার্চ পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ঢাকায় গণহত্যা শুরু করে। ২৭ মার্চ থেকে সারা দেশে প্রতিরোধ গড়ে ওঠে।
ফের্নীতে একটি পাকিস্তান আর্মি ক্যাম্প ছিল, সিও অফিসে তারা ছিল। ২৭ শে মার্চ সেই ক্যাম্প ঘেরাও করেন অস্রহাতে বীর মুক্তিযোদ্ধা খোন্দকার মোজাম্মেল হকসহ মুক্তিকামী জনতা। ক্যাম্পের দেওয়াল ফুটো করে মুক্তিকামী জনতার ওপর গুলি ছুড়ে পাকিস্তান হানাদার। এক পর্যায়ে এ দেশীয় পুলিশ ও সাবেক আর্মিদের সহাতায় সবগুলো পাকহানাদারকে খতম করা হয়।তখন প্রাথমিকভাবে ফেনী শত্রু মুক্ত হয়।
পরবর্তীতে ফেনীতে যাতে পাক হানাদার বাহিনী ঢুকতে না পারে। মহাসড়কে ব্যারিকেট দিয়ে রাখেন খোন্দকার মোজাম্মেল হক সহ মুক্তিকামী জনতা।
খোন্দকার মোজাম্মেল হক এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত ফেনীতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী প্রবেশ করতে পারে নাই।
পরবর্তীতে সেলিং করতে করতে পাকিস্তান সরকার শত্রু সৈন্য নামিয়েছে ফেনী নদী দিয়ে স্পীড বোর্ড ব্যবহার করে বিভিন্ন গানবোর্ড নিয়ে এসে ফেনীতে অবস্থান নেয়।
তারপর (২৪ শে এপ্রিলের পরে ) ক্যাপটেন জাফর ঈমাম ফেনীতে আসেন। তিনি মুন্সির হাট এলাকায় ডিফেন্স গড়ে তোলেন। সেক্টর কমান্ডার ছিলেন মেজর খালেদ মোশারফ। জাফর ঈমাম ছিলেন সাফ সেক্টর কমান্ডার।
পরে খোন্দকার মোজাম্মেল হক সংগঠিতভাবে অস্রহাতে পাক হানাদার বাহিনীর ওপর অস্রহাতে যুদ্ধ করেন। তিনি বলেছিলেন, তিনি আঘাত করেই পালিয়ে যেতেন। পুনরায় আবার আঘাত করতেন। নির্দেশনাও ছিল এমন। কিন্তু তার কিছু সহকর্মী মুক্তিযুদ্ধা শত্রু সৈন্যকে আঘাত করে পালিয়ে না যাওয়ায় প্রাণ হারান। শহীদ হন।
১৯৭১ সালে ৬ ডিসেম্বর ফেনী মুক্ত হলে বিজয় মিছিলের অন্যতম নেতৃত্বদানকারী ছিলেন। মিছিল শেষে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন।
ফেনী মুক্ত হওয়ার পর আওয়ামী লীগের পরশুরাম ও ছাগলনাইয়া থানার প্রশাসনিক ও সাংগঠনিক পূনর্বিন্যাস কমিটির আহবায়ক ও নোয়াখালী ১ নির্বাচনি এলাকার বিশেষ রাজনৈতিক সমন্নয়ক এর দায়িত্ব পালন করেন।
লেখা লেখি ছিল তাঁর সারাজীবনের অন্যতম অধ্যায়। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই সাংবাদিকতার সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি সাপ্তাহিক সুগন্ধা, আজকের সূর্যোদয়, দৈনিক আজকের ঢাকা, দৈনিক পূর্ব আলোর প্রধান সম্পাদক ছিলেন।
তিনি জাতীয় প্রেস ক্লাবের নির্বাহী সদস্য, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নে ডেইলি নিউজ ইউনিয়নের চীফ ছিলেন। বাংলাদেশ সংবাদপত্র পরিষদের সদস্য, মানবাধিকার সাংবাদিক গ্রুপের মহাসচিব ছিলেন।
বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে স্বাধীনতা পরবর্তীতে ৬৮ হাজার গ্রাম বাংলার প্রতিনিধি হয়ে লেখনি মাধ্যমে তথা কলমের খোঁজা মেরে বিশেষ করে গেদুচাচার খোলা চিঠি, সিদ্ধিবাবার উপলব্ধি, সুসংবাদ ও দুঃসংবাদ ইত্যাদি শিরোনামে নিয়মিত কলাম লিখে রাষ্ট্র নায়কদের বুদ্ধি দিয়ে সুপরামর্শ দিয়ে, ভূল শুধরিয়ে সমগ্র বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়ন আজীবন ভূমিকা রেখে গেছেন বিশ্ব বরন্য গেদুচাচা খ্যাত সাংবাদিক খোন্দকার মোজাম্মেল হক। সত্যের পথের এই কলম যোদ্ধার কাছে ছিল সবার ওপরে বাংলাদেশ।
আজকের সূর্যোদয় নিয়মিত প্রকাশনার ৩০ বছরে ২০৯২ টি চিঠি লেখেছিলেন। সিদ্ধি বাবার উপলব্ধি শিরোনামের কলামের মতিয়ার রহমান তাঁরই ছদ্মনাম।
আজকের সূর্যোদয়ের ধারাবাহিক উপন্যাস ” স্বর্গ নরক” এর লেখক সুমন চৌধুরী গেদুচাচারই আরেকটি ছদ্মনাম। তিনি সুংসবাদ দুঃসংবাদ শিরোনামের নিয়মিত কলামিস্ট। কোটি পাঠকের পরিচিত নাম গেদুচাচা ।
শুধু বাংলাদেশে নয় আজকের সূর্যোদয় পত্রিকাটি আমেরিকা,কানাডা, অস্টেলিয়া,ইউরোপ ও আফ্রিকার দেশসমহ, আরব আমিরাত, কুয়েত, কাতার, ওমান ও ভারতসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নিয়মিত প্রকাশিত হতো।
শিক্ষা জীবনে খোন্দকার মোজাম্মেল হক স্নাতক ডিগ্রি ছাড়াও আইন ও সাংবাদিকতা বিষয়ের ডিগ্রি লাভ করেন।
১৯৯১ সালে তিনি আজকের সূর্যোদয় গ্রুপ পাবলিকিসন্স প্রতিষ্ঠা করেন। এ গ্রুপ থেকে তিনি আজকের ঢাকা, আপনজন, সোনার তরী, সোসাইটি প্রকাশিত হচ্ছে।
এ ছাড়াও তিনি উল্টোস্রোত নামক এনজিও বিষষয়ক মাসিকেরও সম্পাদনা পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি রেডক্রিসেন্ট, বাংলাদেশ লায়ন ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ ব্লাড ব্যাংক ঢাকা, ফেনী ডায়বেটিক সমিতি, ম্যাপ বাংলাদেশ এর আজীবন সদস্য ছিলেন। তিনি গতিয়া আজিজুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক ছিলেন।
ইতিমধ্যে তাঁর লেখা কাব্যগ্রন্থ নগ্ননারী বিসার্প বোমারু বিমান এবং গেদুচার খোলা চিঠি নামে একটি কলাম সংকলন প্রকাশিত হয়েছে। ১৯৯৫ সালে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক “তোমার সংগে যাবো” ১৯৯৬ সালে “আরেক একাত্তর ” নামে তাঁর লেখা দুটো উপন্যাস প্রকাশিত হয়েছে। তাঁর আরেকটি প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ” রক্তাক্ত স্মৃতি ১৯৭১।
খোন্দকার মোজাম্মেল হক সাউথ এশিয়ান সোসাইটি, ইউনেস্কো, রিসার্চ রাইট ফোরাম, হিউম্যান রাইট ফোরাম ও অল ইন্ডিয়া মিডিয়া নিউজ পেপার ফেডারেশন থেকে একাধিক পুরস্কার লাভ করেন।
একজন সাংবাদিক ও কলামিস্ট হিসেবে দেশে ও বিশ্ব পরিমন্ডলে একাধিক পুরস্কার প্রাপ্ত কিংবদন্তি ফেনীরই কৃতি সন্তান
সমাজ সেবক হিসেবে তিনি বহু সংগঠের সাথে জড়িত। তিনি লায়ন্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল ৩১৫ বি ২ এর রিজিয়ন চেয়ারম্যান। তিনি বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফাউন্ডিং ফোরামের চেয়ারম্যান, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন। তিনি সমাজের মানুষের কিছু করা, মানুষের উপকার করা তাঁর আরেকটি নেশা ছিল। তিনি একবার ফেনী ১ আসনের জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট মনোনয়ন চেয়েছিলেন। জননেত্রী শেখ হাসিনা খোন্দকার মোজাম্মেল হককে পরের বার বিবেচনা করবে বলে সান্ত্বনা দেন। কিন্তু পরে আর তিনি প্রার্থী হন নাই।
পারিবারিক জীবনে তিনিসহ ৩ ভাই ও ৫ বোনের মধ্যে সবার বড় ভাই ছিলেন। দেশ স্বাধীনের পূর্বে ১৫ বছর বয়সেই তিনি পিতাকে হারান। তাঁর মা এবং পরিবারের বড় ভাই হিসেবে তিনি পরিবারের হাল ধরেছিলেন।
বিবাহীত জীবনে তিনি ১৯৭৮ সালের ৩০ নবেম্ভর ছাগলনাইয়া উপজেলা মাটিয়া গোধা এম এ রউপের প্রথম কন্যা ফারজানা নুর নাহার লাকির সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তিনি ৩ পুত্র ও ২ কন্যার জনক।
ধর্মীয় জীবনে তিনি ৩ বার হজ্ব পালন করেছিলেন।
২০২০ সালের ২৮ জুন শনিবার গেদুচাচা ঢাকার সেগুনবাগিচা নিজ বাসায় ডায়াবেটিস জনিত কারনে শারিরীক অসুস্থতা দেখা দিলে ডাক্তার প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করেন। ঐ দিনই সন্ধায় তাঁর শাসকষ্ঠ দেখা দিলে ঢাকা উত্তর বাড্ডা এএমজেট হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। ২০২০ সালের ২৯ জুন রবিবার বিকেল ৪ টায় ঢাকার এএম জেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সবাইকে শোক সাগরে ভাসিয়ে এই কিংবদন্তি খোন্দকার মোজাম্মেল হক চির বিদায় নিলেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)
মৃত্যু কালে তিনি স্ত্রীসহ ৩ পুত্র, ২ মেয়ে, ২ ভাই, ৫ বোন সহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান
এই জাতীয় বীর সন্তান ও গেদুচাচা খ্যাত বিশিষ্ট সাংবাদিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা খোন্দকার মোজাম্মেল হকের মৃত্যুতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মাননীয় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, মাননীয় মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য তোফায়েল আহমেদ, তথ্যমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ, ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নুর তাপস, সুপ্রিম কোর্ট বারের আমিন উদ্দিন মানিক,চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন মেয়র আজম নাসির উদ্দিন, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল আলম চৌধুরী নওফেল, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের অভিবাবক আলা উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম, ফেনী ২ আসনের এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি, ফেনী ২ আসনের সাবেক এমপি জয়নাল আবেদীন হাজারী, ফেনী ১ আসনের এমপি শিরীন আখতার এমপি, ফেনী ৩ আসনের এমপি মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী,
ফেনী জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহানারা বেগম সুরমা, সাধারণ সম্পাদক লায়লা জেসমিন বড় মনি, ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল, ছাগলনাইয়া পৌর মেয়র মোঃ মোস্তফা, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ফেনী জেলা শাখার সভাপতি এমরান পাটোয়ারী, জাতীয় প্রেস ক্লাব, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, ফেনী প্রেস ক্লাব, ছাগলনাইয়া প্রেস ক্লাব গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
২০২০ সালে ৩০ জুন সকাল ৯ টায় ঢাকা জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রথম নামাজে জানাজা ও ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলা পূর্ব সোনাপুর নিজ গ্রামের বাড়ির সামনে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে গার্ড অব অনার প্রদান পূর্বক রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পারিবারিক কবরস্থানের দাফন করা হয়।
Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 3999492আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 12এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET