২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • নিখোঁজের তালিকায় আরো ৭, আর না-ও ফিরতে পারি বলে বাড়ি ছাড়ে ডাক্তার পরিবার

নিখোঁজের তালিকায় আরো ৭, আর না-ও ফিরতে পারি বলে বাড়ি ছাড়ে ডাক্তার পরিবার

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুলাই ১৯ ২০১৬, ০১:৩৯ | 621 বার পঠিত

23246_f5নয়া আলো- গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তরাঁয় জঙ্গি হামলার পর অন্তত ১০ যুবকের পরিচয় প্রকাশ হয়েছে যারা দীর্ঘদিন থেকে নিখোঁজ। পরিবারের ধারণা, তারা জঙ্গিসংশ্লিষ্ট কার্যক্রমে জড়িত। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ধারণা তারা মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে দেশের বাইরে চলে গেছে। এমন আরো সাত জনের সন্ধান মিলেছে যারা গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে নিখোঁজ। তাদের মধ্যে পুরো পরিবারসহ এক চিকিৎসক রয়েছেন। তার স্ত্রীও সরকারি কলেজের শিক্ষক ছিলেন। এক মেয়ে ও মেয়ের স্বামী ছিলেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা নিখোঁজদের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলার পর জানিয়েছে। তাদের ধারণা, ওই চিকিৎসক পরিবারটি তুরস্ক হয়ে সিরিয়া চলে গেছে। শিশু চিকিৎসক খন্দকার রোকন উদ্দিন (৫০) ঢাকা শিশু হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। তার স্ত্রী নাইমা আক্তার যশোর সরকারি এমএম কলেজে শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তাদের মেয়ে রেজওয়ানা রোকন (২৩) ও তার স্বামী সাদ কায়েস ওরফে শিশির নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। মেয়ে রামিতা রোকন ভিকারুননিসা স্কুলের শিক্ষার্থী। সাদ কায়েসও (৩০) সঙ্গী হয়েছেন তাদের। ডা. রোকন উদ্দিন খিলগাঁও চৌধুরী পাড়ায় থাকতেন। ওই বাড়িটি স্ত্রী নাইমা আক্তারের পৈতৃক। রামপুরা থানা সূত্র জানায়, গত বছরের ১০ই অক্টোবর তারা দেশ ছেড়ে চলে যান। চিকিৎসক পরিবার ছাড়া নিখোঁজ অন্য দুইজনের মধ্যে একজন বনানী এলাকার তাওসীফ হোসেন। অন্যজন সেজাদ রউফ ওরফে অর্ক ওরফে মরোক্কো। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সন্দেহ, তারা জঙ্গি কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়েছেন।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রামপুরা চৌধুরীপাড়ার পাঁচতলা ভবনের তৃতীয় তলার ফ্ল্যাটে পরিবার নিয়ে থাকতেন রোকন উদ্দিন। বাড়িটি প্রয়াত হোমিও চিকিৎসক আলী আহমেদের। ওই বাড়ির তত্ত্বাবধানকারী হেলাল উদ্দিন জানান, আলী আহমেদ তার দুই মেয়েকে বাড়িটি দিয়ে গিয়েছিলেন। তার একজন রোকন উদ্দিনের স্ত্রী নাইমা। প্রায় এক বছর আগে থেকে তাদের কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। প্রথমে তারা মালয়েশিয়া যাবেন, এরপর অন্য কোনো মুসলিম দেশে যাওয়ার কথা বলেছিল। যাওয়ার সময় তারা বলেছিলেন তারা আর দেশে না-ও ফিরতে পারেন। রামপুরা থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, দেশ ছাড়ার পর পরিবারকে ফোন করে তারা জানিয়েছিলেন আমরা একটি মুসলিম দেশে আছি, ভালো আছি। আমরা আর কোনোদিন বাংলাদেশে ফিরবো না।
এদিকে একই পরিবারের ৫ সদস্যের নিখোঁজের ব্যাপারে রোববার রাতে রামপুরা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। রামপুরা থানার ওসি (তদন্ত) শফিক আহমেদ জাহান মানবজমিনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
নিখোঁজ নাইমার বোন ডা. হালিমা আহমেদ জানান, গত বছর রোজার সময়ে একদিন তার বোন জানান- তারা সপরিবারে বিদেশ যাচ্ছেন। এর ২-৩ দিন পর সন্ধ্যায় তার বোন আবারো জানান, রাত ২টায় তাদের ফ্লাইট। প্রথমে তারা মালয়েশিয়া যাবেন। এরপর সেখান থেকে তুরস্কের উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন। স্বামী ডা. রোকন উদ্দিন সেখানে একটি হাসপাতালে চাকরি পেয়েছেন। এর আগে ডা. রোকন উদ্দিন ঢাকা শিশু হাসপাতালের চাকরি থেকে অব্যাহতি নেন। ডা. হালিমা আরো বলেন, তারা চলে যাওয়ার পর থেকে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ ছিল। এরপর থেকে ডা. রোকন উদ্দিনের বড় ভাই আফাজ উদ্দিনের ছেলেমেয়েরা এখন সাতটি ফ্লাট দেখাশুনা করছেন। চলতি বছরের রোজার সময় একটি বিদেশি নম্বর থেকে তার মোবাইল ফোনে কল আসে। ও প্রান্ত থেকে নাইমা আহমেদ জানান, তারা তুরস্কে আছেন এবং ভালো আছেন। এর বেশি কথা হয়নি। রামপুরা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম নিখোঁজ চিকিৎসকের ভাই আফাজ উদ্দিনের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, গত বছরের জুন মাসে ডা. রোকন উদ্দিন, তার  স্ত্রী, দুই মেয়ে ও জামাতা তুরস্ক চলে যান। এরপর থেকে তারা দেশে ফেরেননি। ভাই দেশে না ফেরায় ফ্ল্যাটের ভাড়া তারাই তুলছেন। তবে কী কারণে তার ভাই দেশে ফেরেননি বা তাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ হয়েছিল কিনা-এ ব্যাপারে পুলিশকে আফাজ উদ্দিন বিস্তারিত তথ্য দেননি।
সমপ্রতি হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার পর দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজের ঘটনাটি পুলিশের নজরে আসে। রোববার রাতে রামপুরা থানা পুলিশের একটি টিম ডা. রোকন উদ্দিনের বাসা পরিদর্শন করে। পুলিশ ডা. রোকনের ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলে। পুলিশ ধারণা করছে, সপরিবারে দীর্ঘদিন ধরে অনুপস্থিত থাকার বিষয়টি রহস্যজনক। এর সঙ্গে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে। রামপুরা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে অনুপস্থিত থাকার বিষয়টি রহস্যজনক। বিষয়টি পুলিশের শীর্ষ পর্যায়কে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4161578আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 8এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET