২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • পাঁচ মিশালী
  • নবীনগরে মেঘনার ভাঙ্গনে ধরাভাঙ্গা,নূরজাহানপুর,সোনাবালুয়া নদীর পাড়ের মানুষেরা দিশেহারা।

নবীনগরে মেঘনার ভাঙ্গনে ধরাভাঙ্গা,নূরজাহানপুর,সোনাবালুয়া নদীর পাড়ের মানুষেরা দিশেহারা।

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুলাই ১৬ ২০১৬, ১৫:০৯ | 675 বার পঠিত

13754379_1558715701101053_6892234239785734264_nমোঃ আক্তারুজ্জামান, নবীনগর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি- মেঘনার কড়াল ভাঙ্গনে নবীনগর উপজেলার নদী তীরবর্তী গ্রামগুলো বড়িকান্দি ইউনিয়নের ধরাভাঙ্গা, নূরজাহানপুর, সোনাবালুয়ার শতশত একর ফসলি জমি ও বসত ভিটে মেঘনার বুকে বিলীন হয়ে যাওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন নদীপাড়ের নির্ঘুম মানুষেরা। গত কয়েক দশকে নদী তীরবর্তী ওইসব একাধিক গ্রামের বহু কৃষিজমি, ঘরবাড়ি ও অসংখ্য গাছপালা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। তাই মেঘনার এই অব্যাহত ভয়াবহ ভাঙ্গন প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নবীনগর উপজেলার মেঘনা তীরবর্তী নবীনগর পশ্চিম বড়িকান্দি ইউনিয়নের প্রায় ৫টি গ্রামে দশ থেকে পনের হাজার বাসিন্দা বছরের পর বছর ধরে ভাঙ্গনের কবলিত নদীর তীরবর্তী এলাকার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন। ভাঙ্গনের কবলে নদী তীরবর্তী গ্রামগুলো নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়ন ধরাভাঙ্গা, মুক্তারামপুর, নূরজাহানপুর, সোনাবালুয়া ও এমপিটিলা এবং শ্রীঘর, কান্দাপাড়া, চিত্রি, নবীপুর ও চরলাপাং, বীরগাঁও ইউনিয়নের বাইশমৌজা, নজরদৌলত, কেদারখোলা ও দাসকান্দি। উল্লেখযোগ্য ঐসব গ্রামগুলোর অর্ধলক্ষাধীক মানুষ দীর্ঘকাল ধরে নদীর সঙ্গে একান্ত হয়ে বসবাস করছেন। এলাকাবাসী জানান এ সব গ্রামের নদীর তীরবর্তী অংশগুলো সারা বছরই কমবেশী ভাঙ্গনের কবলে থাকে। তবে বর্ষাকালে এ সব এলাকায় নদী ভাঙ্গন ভয়াবহ রূপ লাভ করে। সে সময় ওইসব এলাকার নদীর পাড়ের মানুষেরা অব্যাহত নদী ভাঙ্গনের ভয়ে সর্বদাই থাকেন আতংকে।

তবে মেঘনার অব্যাহত নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে ইতিমধ্যে এলাকার বিত্তশালীরা এলাকা ছেড়ে অন্যত্র পাড়ি জমিয়েছেন বলে জানান এলাকাবাসী। সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে ধরাভাঙ্গা, এমপি টিলা থেকে নূরজাহানপুর খাল পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার এলাকায় মেঘনা নদীর ভাঙ্গন চোখে পড়ার মত। ভয়াবহ নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে এলাকাবাসী জানান এই মেঘনা নদীর নবীনগর-নরসিংদী নৌপথের মানিকনগর বাজার ও বড়িকান্দিতে দুটি লঞ্চঘাট রয়েছে। নবীনগর নরসিংদী নৌ-পথে চলাচলরত নৌযানের সুবিধার্থে স্বাধীনতার পূর্বেই লঞ্চঘাট দুটি এলাকায় স্থাপন করা হয়। তবে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নদী ভাঙ্গনের কবল থেকে এলাকাবাসীকে রক্ষা করতে বড়িকান্দি এলাকায় ২০০৯-১০ অর্থবছরে প্রায় ছয়শ মিটার একটি বাধ নির্মান করা হয়। এলাকার লোকজন জানান, সোনাবালুয়া গ্রামের বহু ঘর-বাড়ি নদীগর্ভে আরো আগেই বিলীন হয়ে গেছে। সেখানে কালের স্বাক্ষী হিসেবে নদী পারাপারের জন্য কেবল একটি ঘাট রয়েছে।

সোনাবালুয়া নৌকাঘাট এখন নদী ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেছে। বড়িকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ সূত্র জানায়, ধরাভাঙ্গা গ্রামের উত্তরপ্রান্তে মেঘনা নদীর পাড়ে ১৯৯৬ সালে একটি বাধ নির্মান করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। সেই বাধের পশ্চিম দিকের জমিতেও এখন ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। বাধটির অনেকাংশ ইতিমধ্যে ভেঙ্গে নদীতে বিলীন হয়ে গেছে বলে জানান এলাকাবাসী। ধরাভাঙ্গা গ্রামবাসী জানান, প্রায় ২০ বছর আগে মরহুম এমপি লতিব সাহেব এলাকায় একটি বাধ নির্মান করেছিলো। সেই বাধেও এখন বড় ধরনের ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে এবং এটিও এখন নদীতে বিলীন হওয়ার পথে। বর্ষাকালে নদীর শো শো স্রোত আর কড়াল ভাঙ্গনে আমাদের গ্রামের অনেক জমি বহু আগেই নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এমপি লতিব সাহেব এর মৃত্যুর পর এখন আর আমাদের খোঁজ খবর এমন ভাবে কেউই নেয় না।

বড়িকান্দি ইউনিয়নের যুবলীগের সিনিয়র সভাপতি মোঃ অবিদ মিয়া সরকার জানান, নবীনগরের (ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫) সংসদ সদস্য ফয়জুর রহমান বাদল এর উদ্যোগে পানি উন্নয়ন বোর্ড নির্বাহী প্রকৌশলী জাকির হোসেন ও সাব এসিস্টেন্ট ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবাহান এমপি সাহেবের পি.এস আবু বকর সিদ্দিক (জাবেদ) ১২-০৯-২০১৫ ইং তারিখ সকাল ১১ ঘটিকায় মেঘনা নদীর ভাঙ্গন পরিদর্শন করেন। অতি শীঘ্রই বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যেগে এই বাঙ্গন রোধের কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করবেন বলে ধরাভাঙ্গা সোনাবালুয়া নূরজাহানপুর মুক্তারামপুর গ্রামের শত শত লোকজনকে আশ্বাস প্রদান করেন। এই সময় এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ যেমনঃ সাবেক চেয়ারম্যান ডাঃ নোয়াব আলী, বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ শাহজাহান, শাহ আলম মেম্বার, যুবলীগের সিনিয়ন সভাপতি মোঃ অবিদ মিয়া সরকার, যুবলীগের সেক্রেটারী নাসির উদ্দিন নাসির, আওয়ামীলীগ নেতা মাঈনউদ্দিন আহাম্মেদ (মঈন)।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4157042আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 14এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET