১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-

তারিক সালমনের ব্যবহারে মুগ্ধ ছিল আগৈলঝাড়াবাসী।

হুমায়ন আরাফাত, আশুলিয়া করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুলাই ২৫ ২০১৭, ২২:০৩ | 631 বার পঠিত

বরিশাল প্রতিনিধিঃ

পঞ্চম শ্রেণির শিশু-শিক্ষার্থীর আঁকা বঙ্গবন্ধুর ছবি দিয়ে কার্ড ছাপিয়ে মামলায় পড়া ইউএনও গাজী তারিক সালমন তাকে সমর্থনে মানুষের ভালোবাসায় অভিভূত। তিনি বলেছেন, ‘আমি আসলে বাকরুদ্ধ। আমি আশা করিনি এত প্রতিক্রিয়া হবে। এটা আমার অবিশ্বাস্য মনে হয়েছে। আমি দেশবাসীর কাছে কৃতজ্ঞ। তাদের পজেটিভ প্রতিক্রিয়ার কারণে আমি আনন্দিত। জামিনযোগ্য মামলা হলেও সেদিন তাকে কারাগারে পাঠানোয় বেশ হতাশ হয়ে পড়েছিলেন। দুঘন্টার কারাবাসে চাকরি ছাড়ার কথাও ভেবেছিলেন। “যখন আমাকে কারাগারে পাঠানো হলো তখন মনে হয়েছে যে এই চাকরিটা মনে হয় আমার আর প্রয়োজন নেই। তখন আসলে খুব হতাশ হয়ে পড়েছিলাম। স্ত্রীকে খবর দিয়েছিলাম যে কারাগারে বসে বইপত্র পড়ব। কিন্তু পরে দেশবাসীর যে সাপোর্ট পেলাম। সার্ভিসের কর্মকর্তাদের সাপোর্ট পেলাম তাতে আমি অনুপ্রাণিত, কৃতজ্ঞ।” অভিযোগ বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি প্রকাশ করেছেন। কিন্তু শিশুর কাঁচা হাতে আঁকা ছবিকে অভিযোগকারী ছাড়া কেউই বিকৃত বলছেন না। বরং এই সুন্দর কাজের জন্য প্রশংসিত হয়েছেন গাজী তারিক সালমন। অফিসের কাজে বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন আগৈলঝাড়া উপজেলার সাবেক নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গাজী তারিক সালমন। আপাতত গনমাধ্যমে বক্তব্য দিতে নারাজ তিনি। বিনয়ের সঙ্গে তিনি জানান, দেশবাসীর প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে রাষ্ট্রের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহানুভূতির কথা উল্লেখ করে তিনি সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। জানা গেছে, একজন যোদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার গর্বিত সন্তান হিসেবে শৈশব থেকেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি অগাধ ভালোবাসা ছিল তার। স্কুল জীবনে তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর উপর প্রবন্ধ লিখে পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার। (ইউএনও) গাজী তারিক সালমনের ব্যাক্তিত্ব, সদাচরন ও সরকারি নির্দেশ পালনে পূর্ন আনুগত্য সম্পর্কে প্রশংসা করেছেন আগৈলঝাড়া উপজেলা প্রশাসনের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সাধারন নাগরিকরা। তিনি আগৈলঝাড়া উপজেলায় ২০১৬ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হিসেবে যোগদান করেন। ২০১৭ সালের মে মাসের ২৭ তারিখ আগৈলঝাড়া থেকে বদলি করা হয় তারিক সালমনকে। ওই উপজেলায় যোগদানের মাত্র ৯ মাসের মাথায় আসে এই বদলির আদেশ। পরে জুন মাসে তিনি বরগুনা সদর উপজেলার ইউএনও পদে যোগদান করেন। আগৈলঝাড়া উপজেলায় যোগদানের পর থেকেই একজন ন্যায় নিষ্ঠাবান ও বিনয়ী কর্মকর্তা হিসেবে উপজেলা প্রশাসনের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সাধারন মানুষের কাছে প্রিয় ব্যক্তি ছিলেন। উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তিনি আগৈলঝাড়ায় কর্মরত থাকা অবস্থায় সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর প্রতি যে শ্রদ্ধাবোধ ও বিনয় দেখিয়েছেন তা অনন্য। উপজেলা পরিষদের প্রতিটি কর্মকর্তা-কর্মচারী তার সদচারনের ভক্ত। যে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধেও তিনি বিনয়ের সঙ্গেই শক্তিশালী অবস্থান নিয়ে থাকতেন। সবসময় তিনি তার নীতিতে ছিলেন অটল ও অবিচল। মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ইউএনও গাজী তারিক সালমনের বাবা মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে গুরুতর আহত হয়েছিলেন। ইউএনও’র সাথে যাদেরই কথা হয়েছে তারাই বলেন, যে’কদিনই তিনি এ উপজেলায় কর্মরত ছিলেন যাদের সাথে তার কথা বা দেখা হয়েছে তাতেই তিনি সত্যিকারের একজন বিনয়ী মানুষ। নির্বাহী অফিসার একজন সৎ মানুষ তার মধ্যে কোন দাম্ভিকতা নেই। সরকারের উন্নয়ন প্রচেষ্টার প্রতি অগাধ শ্রদ্ধাশীল ছিলেন তিনি। একজন তরুন ও উদ্যমী কর্মকর্তা হিসেবে (ইউএনও) গাজী তারিক সালমন অল্প সময়ের মধ্যেই সবার কাছে প্রিয় হয়ে উঠেছিলেন। এমন একজন কর্মকর্তার সঙ্গে যে আচরন করা হয়েছে তা কোনভাবেই কাম্য নয়। আগৈলঝাড়া উপজেলায় তার ৯ মাসের কার্যক্রমের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে প্রশাসনের কাজে সাংবাদিকদের সহযোগিতার প্রশংসা করেন। তিনি আগৈলঝাড়া উপজেলাকে মাদকমুক্ত, বাল্য বিয়ে মুক্ত, নকলমুক্ত শিক্ষাঙ্গন তৈরি করার কথা তুলে ধরেন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে মামলা, মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা, ভ্রাম্যমান আদালতের দন্ডের কারণে জনগণকে নাড়া দেয়ার চেষ্টার কথা জানিয়ে বিভিন্ন বিচারিক কার্যক্রমের বিবরণ দেন। তার আচার-আচরনে উপজেলা পরিষদের সবাই মুগ্ধ ছিলেন। অফিসের কর্মকর্তা তো বটেই, সাধারন মানুষের সঙ্গেও তিনি খুব বিনয়ী ব্যবহার করতেন। (ইউএনও) গাজী তারিক সালমনের আচার-আচারন, সততা, দেশপ্রেম ও দৃঢ়তা আসলেই সকল প্রশ্নের উর্ধে। প্রকৃতপক্ষে তিনি একজন ভদ্র, সৎ এবং মেধাবী কর্মকর্তা। একই সঙ্গে তার সাহিত্য এবং কাব্য প্রতিভাও অসামান্য। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচনা লিখে স্কুল জীবনেই জাতীয় প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জন করেছিলেন তারিক সালমন। একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে তার পক্ষে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করা কখনই সম্ভব নয়। একজন ন্যায়-নিষ্ঠাবান ও কর্তব্য পরায়ন কর্মকর্তা হিসেবে আগৈলঝাড়া উপজেলার ইউএনও হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে নানামুখী সৃজনশীল কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে প্রশংসিত হন ইউএনও গাজী তারিক সালমন। এসময় দায়িত্ব ও কর্তব্যে অবিচল থেকে বেশ কিছু অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরেুদ্ধে অবস্থান নিলে একটি মহল অসৎ উদ্দেশ্যে বিদ্বেষমূলকভাবে তার বিপক্ষে অবস্থান নেয়। চলতি বছরের ১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে শিশুদের নিয়ে চিত্রাঙ্কান প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আগৈলঝাড়া উপজেলা পরিষদ। এ প্রতিযোগিতায় প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অধিকার করা ছবি দুটো দিয়ে ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আমন্ত্রণ পত্র ছাপান তৎকালীন ইউএনও গাজী তারিক সালমন। দাওয়াত কার্ডের একটি ছবি বঙ্গবুন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের হওয়ায়, ওই ছবি বিকৃতির অভিযোগে চলতি বছরের ৭ জুন বরিশাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঁচ কোটি টাকার একটি মানহানি মামলা দায়ের করেন বরিশাল জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি সৈয়দ ওবায়েদ উল্লাহ সাজু। এ মামলায় গত ১৯ জুলাই আদালতে হাজির হয়ে (ইউএনও) গাজী তারিক সালমন জামিন আবেদন করলে আদালতের বিচারক নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। এসময় (ইউএনও) গাজী তারিক সালমন গ্রেফতারের সংবাদ ফেইসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন মিডিয়ায় প্রকাশ হওয়ার পরপরই সারাদেশে সমালোচনার ঝড় উঠে। পরে জামিন নামঞ্জুরের দু’ঘন্টা পরে একই আদালত তাকে অন্তবর্তীকালীন জামিন প্রদান করেন। পরে বাদী সৈয়দ ওবায়েদ উল্লাহ সাজুর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত মামলাটি প্রত্যাহার করে। উল্লেখ্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজীতে স্নাতক ও স্নাতোকোত্তর সম্পন্ন করে ২৮ তম বিসিএসে উর্ত্তীন হয়ে চাকুরীতে যোগদান করেন। ইউএনও গাজী তারিক সালমনের বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা উপজেলায়। এক ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। তার বাবা একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা।

 

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4216512আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 5এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET