২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-

গভীর রাতে রাজশাহী বাস টার্মিনাল রণক্ষেত্র ।

হুমায়ন আরাফাত, আশুলিয়া করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : মে ২৬ ২০১৭, ০৯:৩৫ | 676 বার পঠিত

নাজিম হাসান,রাজশাহী:

রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন কেন্দ্র করে গভীর রাতে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে শ্রমিকদের দু’পক্ষের সংঘর্ষে নগরের শিরোইল বাস টার্মিনাল এলাকা রণক্ষেত্রে পরিনত হয়। সংঘর্ষের সময় তিন নির্বাচন কমিশনার ও সাংবাদিকসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। ভাঙচুর করা হয় সাংবাদিকের ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন। ছিনতাই করা হয় ব্যালট পেপার। পরে পুলিশ গিয়ে কয়েক রাউন্ড ফাঁকাগুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বোয়ালিয়া থানার ওসি শাহাদত হোসেন খান বলেন, ভোট গণনা শুরুর আগেই শ্রমিকদের এক পক্ষ কেন্দ্রে হামলা চালায়। হামলাকারিরা ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এসময় অপর পক্ষ বাধা দিতে গেলে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষের সময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার অঙ্কুর সেনসহ তিন কমিশনার আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে তিন নির্বাচন কমিশনারকে উদ্ধার করা হয়। তবে শ্রমিকদের কোন কোন পক্ষের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে যানা যাবে বলে জানান ওসি শাহাদত।হামলার শিকার এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার সুজাউদ্দিন ছোটনের ক্যামেরার ভাঙা অংশ ও চশমা পড়ে রয়েছে ব্যালট পেপার বাছাই শেষ হয় রাত ১টার দিকে। বাছাইয়ের পর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে কে নির্বাচিত হচ্ছেন তা অনেকটায় নিশ্চিত হন প্রার্থীরা। বাছাই শেষে ভোট গণনা শুরু হলে সভাপতি প্রার্থী কামাল হোসেন রবির সমর্থকরা সেখানে হামলা চালিয়ে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এসময় সাধারণ সম্পাদক পদের প্রার্থী মাহাতাব হোসেন চৌধুরীর সমর্থকরা বাধা দিতে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এসময় উভয়পক্ষ ধারালো ও আগ্নেয়াস্ত্র হাতে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে পুরো টার্মিনাল এলাকা রণক্ষেত্রে পরিনত হয়। এসময় ছবি তুলতে গেলে এটিএন বাংলার রিপোর্টার সুজাউদ্দিন ছোটনকে লাঞ্ছিত করে তার ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে ভাঙচুর করা হয়। পুলিশের উপস্থিতিতে উভয়পক্ষ অস্ত্র হাতে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লেও প্রথমে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। পরে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকাগুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মাহাতাব হোসেন চৌধুরী বলেন, হেরে যাচ্ছে এমন নিশ্চিত হয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে সভাপতি প্রার্থী কামাল হোসেন রবি ও তার লোকজন ভোট গণনার আগে সভাপতি প্রার্থীর বিজয় ঘোষণার দাবি জানায়। আমি তাতে রাজি না হলে তার সঙ্গে অশালিন আচরণ করা হয়। সেখান থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর আধাঘন্টার মধ্যে ফিরে এসে রবির লোকজন এ তান্ডব চালায়। এসময় বাধা দিতে গেলে নির্বাচন কমিশনারসহ তার লোকজনকে মারপিট ও ভাংচুর চালিয়ে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে গিয়ে পুড়িয়ে দেয় বলে জানান তিনি। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে কামাল হোসেন রবিকে পাওয়া যায়নি। রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীন ভাবেই বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন চলে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১০টি পদে ৬০জন প্রার্থী এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় করছেন। ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৪৯৫ জন। তবে কতজন ভোটার তাদের ভোট প্রয়োগ করেছেন তা জানা যায়নি।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4206984আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 3এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET