২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৬ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-

কুষ্টিয়ার ফল ব্যবসায়ী হত্যা।ঘাতক টিপুকে ধরতে মাঠে নেমেছে পুলিশ

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুন ২২ ২০১৭, ১৭:০০ | 619 বার পঠিত

অর্পণ মাহমুদ,কুষ্টিয়া থেকে-কুষ্টিয়া শহরের চৌড়হাস মোড়ের ফল ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম (২৫) এর জবাইকৃত মরদেহ উদ্ধারের পর এ ঘটনায় জড়িত ঘাতক আপন খালাতো ভাই নুর আলম(৩০) কে ওই দিনই আটক করেছে পুলিশ। এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত আরেক ঘাতক টিপুকে খুজছে পুলিশ । এ ঘটনায় আরো কেউ জরিত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তবে নিহতের পরিবারের দাবি এ হত্যাকান্ডের মূল হোতা নিহতের আপন খালাত ভাই নূর আলম । এদিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে রবিউলের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হলে গতকাল রাতেই চৌড়হাস গোরস্থানে লাশের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ফল ব্যবসায়ী রবিউল কে পরিকল্পিত ভাবে জবাই করে লাশ দোকানের পিছনে একটি ড্রামে রেখে বালু ফেলে চাপা দিয়ে লাশ গুমের চেষ্টা চালায় হত্যাকারীরা। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার সকালে চৌড়হাস ভাড়া বাসা থেকে ফলের দোকানদার রবিউল দোকান খুলতে আসে। এসময় ওৎ পেতে থাকা পাশের ফলের দোকানদার আপন খালাতো ভাই নুর আলম পুর্ব শত্রুতার জের ধরে রবিউল দোকান খুলতে গেলে তাকে পিছন থেকে হাতুড়ি দিয়ে মাথায় সজোরে আঘাত করে। আঘাতে সে মাটিতে লুটিয়ে পরে জ্ঞান হারিয়ে পরে। এ সময় ঘাতক নুর আলম ও টিপু তার গলাই ধারালো অস্ত্র দিয়ে জবাই করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। একপর্যায়ে দোকানে থাকা প্লাষ্টিকের ড্রামের মধ্যে হাত পা বেধে নিহত রবিউলের লাশ রেখে দিয়ে তার ওপরে সিমেন্ট ও বালি চাপা দিয়ে দোকানের পেছনে লুকিয়ে রাখে ঘাতকরা। পরে দোকানের আশেপাশে রক্তের ছাপ দেখে স্থানীয় দোকানদারের মধ্যে কানা ঘুষা শুরু হয়, এই সংবাদ জানতে পারে কুষ্টিয়া মডেল থানার পুলিশ। পরে পুলিশ ও র‍্যাবের ঊর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনা স্থলে পৌছে দোকানের পিছন থেকে ড্রামে নিহত রবিউলের লাশ উদ্ধার করে। নিহত রবিউল ইসলামের বাড়ি মাদারিপুর জেলার টেকেরহাট উপজেলার শংকরদি গ্রামে। সে ওই গ্রামের মৃত আব্দুল ছাত্তারের ছেলে। নিহত রবিউল ও তার খালাতো ভাই ঘাতক নুর আলম দুজনেই দীর্ঘদিন ধরে চৌড়হাস মামার বাড়িতে থেকে চৌড়হাস মোড়ে দুইটি ফলের দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যাবসা করে আসছিল। ব্যবসায়ী দন্দের কারনেই এই হত্যা কান্ড ঘটায় বলে দাবি নিহতের পরিবারের। নিহত রবিউলের ভাই রেজাউল জানান, নিহত রবিউল ঘটনার দিন সকালে সাড়ে ৭ টার দিকে বাড়ী থেকে দোকান খোলার উদ্দ্যেশে বেড়িয়ে যায়। পরে তার ফোনে কল দিলে রিং বাজলেও কেউ রিসিভ করেনা। সকাল ১০টায় দোকানে ভাইকে খুজতে গেলে না পেয়ে আত্মীয় স্বজন বাড়ী, হাসপাতাল থানাসহ বিভিন্ন জায়গায় খোজাখুজি করেও কোথাও পাওয়া যায়নি। পরে বেলা দেড় টার দিকে আমার মামা নুর হোসেন মোবাইল ফোনে আমাকে জানায় রবিউল কে পাওয়া গেছে। কারা যেন হত্যা করেছে রবিউলকে। আমার ভাইয়ের হত্যা কাণ্ডের সাথে জড়িত রয়েছে আমার মামা নুর হোসেনের জামাই টিপু (৪০)। আমি থানা হাজতে ঘাতক নুর আলমের সাথে কথা বললে সে জানায়, আমি ও টিপু এই হত্যা করেছি। টিপু নিহত রবিউলকে ধরে রাখে ও আমি জবাই করি। পরে নিহত রবিউলের লাশ দোকানের মধ্যে টেনে নিয়ে যায়। টিপু হাত পা বেধে দেই তারপর দুইজন মিলে লাশ ড্রামের মধ্যে রেখে বালি ও সিমেন্ট দিয়ে আটকে রাখি। নিহত রবিউলের কারণেই মামার ফলের দোকানের ব্যাবসার সমস্যা হচ্ছিলো তাই এই হত্যা করেছি। পরে টিপু আনারস কিনতে যাওয়ার কথা বলে পালিয়েছে। হাটশ হরিপুরের বনী আক্তারের সাথে ২ বছর আগে নিহত রবিউলের বিয়ে হয়। তার রয়েছে ১ বছরের একটি ছেলে সন্তান। রবিউলের স্ত্রী বনী আক্তার একমাত্র শিশু ছেলে কোলে নিয়ে কান্নারত অবস্থায় জানান, আমার স্বামীকে যারা হত্যা করেছে তাদের ফাসি চাই।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4218261আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 7এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET