১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

[gtranslate]

শিরোনামঃ-

আমি স্বীকার করছি এগুলো পচা খেজুর!

হুমায়ন আরাফাত, আশুলিয়া করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুন ১৪ ২০১৭, ২০:১৯ | 609 বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:-
ফেনীতে ভেজাল ও প্রতারণা প্রতিরোধে জেলা প্রশাসনের তীব্র অভিযান। তিন প্রতিষ্ঠানকে ২ লাখ ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড। রমযানে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণে ও নকল,ভেজাল ও মানহীন খাবার এর বিক্রি বন্ধে দিনব্যাপী ব্যাপক মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা। এ সময় তাকিয়া  বাড়ির সামনে ইকরা ফুডের ভেতর দেখা  যায় অনুমোদনহীন ভাবে ভুয়া ল্যাবেল লাগিয়ে তৈরী করা হচ্ছে সেমাই। এ সময় ব্যাবস্থাপক মমিনুল হককে নকল পণ্য, অনুমোদনহীনভাবে ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সেমাই ও চিপস তৈরীর অপরাধে ১লক্ষ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করেন আদালত। এরপর অভিযান পরিচালনা করা হয় তাকিয়া রোডের বড় বাজারে মেসার্স হাজী সিরাজুল ইসলাম আড়তে। আড়তের মালিক আদালতকে জানান তার বিক্রিকৃত খেজুর পচাঁ। এ সময় পচা খেজুর বিক্রি করে ক্রেতাদের প্রতারিত করার অপরাধে প্রতিষ্ঠানটির মালিক ইসমাইলকে ১ লক্ষ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করে আদালত।এ সময় ১৪ বস্তা পচা খেজুর জব্দ ও ধ্বংস করা হয়। এর আগে মহিপাল বাস স্ট্যান্ডের স্টার হোটেলের মালিক সাহাব উদ্দিনকে অত্যন্ত মানহীন পরিবেশে খাবার প্রস্তুতের জন্য ১০হাজার টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত করেন আদালত। এ ব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা জানান, পুরো রমযানে ভেজাল ও প্রতারণা প্রতিরোধে মাঠে আছে জেলা প্রশাসন। ঈদের আগে ভোক্তাদের অধিকার রক্ষায় অব্যাহত থাকবে এ ধরণের অভিযান। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন স্যানিটারি ইন্সপেক্টর নুরুল করিম ।
Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4215187আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 4এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET